গ্রামীণ রাস্তার মধ্যেও আধুনিকতার ছোঁয়া, খুশি এলাকার আট থেকে আশি

সাগর দেব, তেলিয়ামুড়া, ১৯ জুন || পাল্টে যাচ্ছে গ্রাম ত্রিপুরার চিত্র। যে সমস্ত গ্রাম অঞ্চল গুলির মধ্যে এক সময় যোগাযোগের সমস্যা একটা বিরাট সমস্যা ছিল, আজকের সময়ে দাঁড়িয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছে। শুধু তাই না, গ্রামীণ রাস্তার মধ্যেও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগছে। এরকমই একটা দৃষ্টান্ত ক্যামেরাবন্দি হল কল্যাণপুর ব্লকের অন্তর্গত দক্ষিন দূর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের এক নম্বর ওয়ার্ডে এলাকায়।
এলাকাবাসীর মতে একসময়ে সংস্লিষ্ট এলাকায় দোপায়া রাস্তা ছিল, পায়ে হেঁটে যাওয়াই কষ্টসাধ্য ছিল। কৃষিপ্রধান এলাকার মানুষরা বিভিন্ন প্রকার কৃষিজাত পণ্য সামগ্রী নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অথবা বিভিন্ন প্রয়োজনে চলাচল করতে গিয়ে প্রচণ্ড সমস্যার মুখে পড়তেন। সরকারের কাছে দাবি করছিলেন রাস্তাঘাটের মানোন্নয়নের, স্থানীয় বিধায়ক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আর্থসামাজিক ব্যবস্থার উন্নয়ন করবেন। সরকারের তত্ত্বাবধানে এবং বিধায়ক পিনাকি দাস চৌধুরীর অভিভাবকত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে দক্ষিণ দুর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন এলাকার উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ। এমনটাই ক্যামেরার সামনে খোলাখুলি বললেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
বিভিন্ন সময় নানান ধরনের প্রশাসনিক সভা কিংবা রাজনৈতিক কাজকর্মের মধ্যেও যখন সময় পান বিভিন্ন এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সরেজমিনে তদন্ত করতে ছুটে যান বিধায়ক পিনাকি দাস চৌধুরী। আজও দাঁড়িয়ে রাস্তায় শ্রমিকদের সাথে কথা বললেন এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছেন। সেই সাথে সাথে কাজের গুণগত মান যাতে বজায় থাকে সেই বিষয়টা খেয়াল রাখার কথাও বললেন শ্রমিকদের।
‘নিউজ আপডেট অব ত্রিপুরা ডট কম’ প্রতিনিধির সাথে কথা বলতে গিয়ে শ্রী চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকার গ্রাম এবং শহরের মধ্যে ব্যবধান কমাতে চাইছেন, তার জন্যই আজকের দিনে দাঁড়িয়ে দক্ষিণ দুর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মত গ্রামেও আধুনিক রাস্তা হচ্ছে। তিনি খুশি এবং আশাবাদী সরকারি কর্মযজ্ঞ আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে।
এখানে উল্লেখ্য, রেগা প্রকল্পে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা ব্যায়ে ৩০০ মিটারের এই রাস্তার কাজ এবছরের প্রথমদিকে শুরু হয় যার কাজ এখন প্রায় শেষের দিকে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী মাস খানেকের মধ্যেই এই রাস্তা সম্পূর্ণভাবে জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। আধুনিক এই রাস্তা পেয়ে খুশি গ্রামীণ এলাকায় আট থেকে আশি সবাই।

FacebookTwitterGoogle+Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*