প্রেমদিবস নয়, ১৪ ফ্রেব্রুয়ারি পিতৃ-মাতৃ দিবস ছত্তিশগড়ে

prtজাতীয় ডেস্ক ।। প্রেমিক-প্রেমিকার সান্নিধ্য নয়, আগামী ভ্যালেন্টাইনস ডে হবে মাবা-মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা দেখানোর দিন। এজন্য ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রেম দিবসের নাম পাল্টে মাতৃ-পিতৃ দিবস করার ফতোয়া জারি করল ছত্তিশগড় সরকার।
সারা বিশ্বের মতো ভারতের নতুন প্রজন্ম ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন করে আসছে কয়েক বছর থেকে। কিন্তু পাশ্চাত্য সংস্কৃতির অংশ বলে এদিন প্রেম দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিতে বরাবর আপত্তি গেরুয়া শিবিরের।
এ কারণে দিনটি অন্য কোনো কারণে স্মরণীয় করে রাখতে এবার উদ্যোগী হলো ছত্তিশগড়ের রমন সিং সরকার। রাজ্যের প্রতিটি সরকারি স্কুলে ওই দিন পিতৃ-মাতৃ দিবস পালন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, এবার থেকে প্রতি বছর দিনটি বাবা-মায়ের নামে চিহ্নিত হবে এবং এ হিসেবেই উদযাপন করা হবে। উল্লেখ্য, দু’বছর ধরে ছত্তিশগড়ের স্কুলগুলিতে ১৪ ফেব্রুয়ারি পিতৃ-মাতৃ দিবস হিসেবেই পালিত হচ্ছে।
শোনা যাচ্ছে, ধর্ষণের মামলায় আপাতত হাজতবাসের শাস্তিপ্রাপ্ত আসারাম বাপুর পরামর্শ মেনেই প্রেমদিবসের তাৎপর্য পাল্টে দেয় প্রশাসন। তবে এ বছরই তাতে সরকারি সিলমোহর পড়ল।
প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে, এদিন বাবা-মাদের স্কুলে আমন্ত্রণ জানাবে পড়ুয়ারা। সেখানে তাদের মালা পরিয়ে আরতি করা হবে। এরপর মিষ্টি বিতরণ করা হবে।

কিছু দিন আগে মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসের আবক্ষ মুর্তি স্থাপনের উদ্যোগ খারিজ হলে ভ্যালেন্টাইনস ডে-কে মাতা-পিতা পূজন দিবস হিসেবে পালন করার আবেদন জানায় হিন্দু মহাসভা।
আর এজন্য রীতিমতো কোমর বেঁধে নেমেছে মহাসভা। জানা গেছে, বিদেশি সংস্কৃতির অঙ্গ ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন করতে দেখা গেলে যুগলদের বিবিধ কঠোর শাস্তি দেয়া হবে।
মহাসভার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, যুগল হিন্দু ধর্মাবলম্বী হলে তাদের আর্যসমাজ মতে সঙ্গে সঙ্গে বিয়ে দিয়ে দেয়া হবে। পাত্র ও পাত্রী ভিন্ন ধর্মমতাবলম্বী হলে তাদের বিশেষ শুদ্ধিকরণ যজ্ঞে বসার নিদান দেয়া হয়েছে।
হিন্দু মহাসভার সর্বভারতীয় সভাপতি চন্দ্রপ্রকাশ কৌশিক গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ভারতবর্ষ এমনই এক দেশ যেখানে ৩৬৫ দিন জুড়েই প্রেম উদযাপিত হয়। তাহলে শুধু ১৪ ফেব্রুয়ারিতেই কেন প্রেম দিবস পালিত হবে?

FacebookTwitterGoogle+Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*