পরিসমাপ্তি হলো হেরিটেজ ফেস্ট – ২০২২, রাজ্যের কৃষ্টি সাংস্কৃতিকে সঙ্গে নিয়ে ফিরে গেলেন দেশ-বিদেশের ৪৭৫ জন যুবক যুবতী

আপডেট প্রতিনিধি, আগরতলা, ৩০ নভেম্বর || ত্রিপুরার পূর্ণ রাজ্য দিবসের ৫০ বছর পূর্তিকে স্মরণীয় করে রাখার উদ্দেশ্যে রাজ্যের অন্যতম গান্ধীবাদী যুব সংগঠন যুব বিকাশ কেন্দ্রের উদ্যোগে স্বর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির তত্ত্বাবধানে আয়োজন করা হয়েছিল হেরিটেজ ফেস্ট – ২০২২। আগরতলার উমাকান্ত ময়দানে গত ২০শে নভেম্বর থেকে ২৮শে নভেম্বর পর্যন্ত চলে এই অনুষ্ঠান। ২০শে নভেম্বর সন্ধ্যায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহা হেরিটেজ ফেস্ট ২০২২ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন আগরতলা পুর নিগমের মেয়র দীপক মজুমদার, বাজাজ ফাউন্ডেশনের ম্যানেজিং ট্রাস্টি অপূর্ব বাজাজ, বিশ্ব যুব কেন্দ্রের চিফ কন্ট্রোলার উদয় সংকর সিং, স্বর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার তপন লোধ, যুব বিকাশ কেন্দ্রের সভাপতি দেবাশীষ মজুমদার, ম্যানেজিং ট্রাস্টি পিংকু দাস প্রমুখ।
জানা যায়, ভারতবর্ষের ১৮টি রাজ্য অরুণাচল প্রদেশ, বিহার, ছত্রিশগড়, চন্ডিগড়, হরিয়ানা, গুজরাত, জম্মু-কাশ্মীর, দিল্লি, মহারাষ্ট্র, মধ্য প্রদেশ, তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, উড়িষ্যা, ঝাড়খন্ড, উত্তর প্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, রাজস্থান, ত্রিপুরা এবং বাংলাদেশের প্রতিনিধি সহ ৪৭৫ জন প্রতিনিধি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন।
শিবির এর সূচনা প্রত্যেকদিন সকাল ৪টা ৫৫ মিনিট থেকে যুবা গীতের মাধ্যমে শুরু হয়, পতাকা উত্তোলন এবং তার বিশেষ প্রশিক্ষণ, শ্রম সংস্কার, ভাষা ক্লাস, বিভিন্ন সামাজিক বিষয়ের উপরে আলোচনা সভা, কমিউনিটি গেম, সর্বধর্ম প্রার্থনা সহ বিভিন্ন রাজ্যের সাংস্কৃতির আদান-প্রদানের অনুষ্ঠান হয়েছিল প্রত্যেকদিন। যার মাধ্যমে যুবকদের মধ্যে একটি বিশেষ পরিবর্তন দেখা গিয়েছে, রাষ্ট্রপ্রেমের প্রতি যুবকরা আরও বেশি করে এগিয়ে এসে কাজ করার মানসিকতা তৈরি হয়েছে।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দিনের সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্তমান সাংসদ বিপ্লব কুমার দেব, সাংসদ রেবতী ত্রিপুরা, মন্ত্রী ভগবান চন্দ্র দাস, রাম প্রসাদ পাল এবং ত্রিপুরা উপজাতি এলাকা স্বায়ত্তশাসিত জেলা পরিষদের কার্যনির্বাহী সদস্য সোহেল দেববর্মা সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। সকল অতিথিরা রাজ্যে বেসরকারি উদ্যোগে গান্ধীবাদী যুব সংগঠন যুব বিকাশ কেন্দ্রের এ ধরনের প্রয়াসকে প্রশংসা করেছেন। সকলেই বলেছেন এধরনের অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে রাজ্যের সাংস্কৃতিকে দেশ-বিদেশের ছড়িয়ে দেওয়ার অনেক সম্ভাবনা রয়েছে আর অপরদিকে রাজ্যের পর্যটন ক্ষেত্র গুলোর বার্তা বিশেষভাবে যুবকদের মাধ্যমে দেশ-বিদেশ ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে তাতে রাজ্যের পর্যটনের সঙ্গে জড়িত যুবক-যুবতীদের আর্থিকভাবেও স্বাবলম্বী হওয়ার একটা বিশেষ সম্ভাবনা রয়েছে।
হেরিটেজ ফেস্ট ২০২২ কে কেন্দ্র করে উমাকান্ত ময়দানে ৮৫টি স্টলের একটি স্বদেশী মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এই মেলায় আগরতলা পুর নিগমের বিভিন্ন সহায়ক দলের বোনেরা, রাষ্ট্রীয় কৃষি এবং গ্রামীন বিকাশ ব্যাঙ্ক এর মাধ্যমে সুবিধাভোগী বিভিন্ন কারিগর, হ্যান্ডিক্রাফট সার্ভিস সেন্টার, ত্রিপুরা শাখার বিভিন্ন বাস বেত শিল্প এর সঙ্গে জড়িত শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেছেন। করোনা মহামারীতে গত দুই বছর এধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন না হওয়াতে বিক্রেতারা অনেক ভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তাই যুব বিকাশ কেন্দ্রের এই প্রয়াসে তাদের কিছুটা হলেও সহযোগিতা হয়েছে বলে বিক্রেতাদের পক্ষে জানানো হয়েছে।
অনুষ্ঠানের অঙ্গ হিসেবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিশেষ সহযোগিতায় প্রতিনিধিরা উজ্জয়ন্ত প্যালেস, আখাউড়া বর্ডার, সিপাহীজলা অভয়ারণ্য, নীরমহল, উদয়পুরের ত্রিপুরেশ্বরী মন্দির সহ বিভিন্ন পর্যটন স্থল গুলোতে ভিজিট করেছেন। তাতে রাজ্যের পর্যটন স্থল গুলোর সম্বন্ধে দেশ-বিদেশের যুবক যুবতীদের মধ্যে একটা বিশেষ আকর্ষণ দেখা দিয়েছে।
সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের মাধ্যমে এবং এ ধরনের যুব শিবির আয়োজিত করে আগামীদিনেও রাজ্যের কৃষ্টি, সংস্কৃতি এবং পর্যটনকে দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে দেওয়ার কাজ যুব বিকাশ কেন্দ্র অব্যাহত রাখবে।
২৯শে নভেম্বর (মঙ্গলবার) শিবির সমাপ্তির পর সারা দেশ থেকে আগত শিবির আর্থিরা রাজ্য থেকে শান্তি এবং সৎ ভাবনার বার্তা নিয়ে নিজ নিজ রাজ্যের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন।

FacebookTwitterGoogle+Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*