যথাযোগ্য মর্যাদায় রাজ্যে পালিত হয়েছে ৬৯তম স্বাধীনতা দিবস

ksdদেবজিৎ চক্রবর্তী, আগরতলা, ১৫ আগষ্ট ।। গোটা দেশের সঙ্গে রাজ্যেও নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালন করা হয়েছে ৬৯তম স্বাধীনতা দিবস। রাজ্যে স্বাধীনতা দিবস পালনের মূল অনুষ্ঠান আয়োজিত হয় আসাম রাইফেলস ময়দানে। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে আসাম রাইফেলস ময়দানকে নান্দনিক সৌন্দর্য্যে সজ্জিত করে তোলা হয়। সেখানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিউগলের সুরে বেজে উঠে ‘জন গণ মন অধিনায়ক জয় হে’-র সুর। আসাম রাইফেলস ময়দানে প্রথাগত কুচকাওয়াজের অভিভাদন গ্রহন করেন মূখ্যমন্ত্রী। সুসজ্জিত প্যারেডের ১৮টি দলের ছন্দোবদ্ধ প্যারেডের সালামী গ্রহন করেন মূখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার, প্যারেডের তালে তালে ছন্দায়িত হয়েছে আসাম রাইফেলস ময়দানে উপস্থিত স্বাধীনতাকামী উৎসাহী জনতার। fghg
প্রধান অতিথির ভাষণে রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সিদ্ধান্তে অসন্তোষ ব্যক্ত করে সামাজিক, স্বাস্থ্য – শিক্ষা খাতে বরাদ্দ কমিয়ে দেয়ার সমালোচনা করেন। বিভিন্ন উদাহরনে মূখ্যমন্ত্রী দেশের সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরে দেশ তথা রাজ্যের মানুষের সাম্প্রদায়িক ঐক্য সংহতি বিনষ্টের ব্যাপারে সজাগ সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। দুর্নীতির প্রশ্নে মূখ্যমন্ত্রী বলেছেন UPA-র দ্বিতীয় দফায় প্রায় শেষ লগ্নে দোহন শুরু হয়েছিল কিন্তু বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যকালের ১০ মাসের ভেতরেই কেলেঙ্কারীর সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে – দেশের জন্য এহচ্ছে অশনি সংকেত।
স্বাধীনতা দিবসে আসাম রাইফেলস ময়দানে রাজ্য তথা কেন্দ্রীয়স্তরের নিরাপত্তা বাহিনীর উচ্চপদস্থ আধিকারীকদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন দপ্তরের উচ্চস্তরের আধিকারীকবৃন্দ। স্বাধীনতা দিবসে আসাম রাইফেলস ময়দানে নান্দনিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সমবেত নৃত্য পরিবেশন হয়, বিভিন্ন স্কুলের প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থী অংশ নেয় চিত্তাকর্ষক পিটিতে, এছাড়াও রক্তদান, চক্ষুদানের মধ্যে সামাজিক কাজে মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয় অনুষ্ঠানে প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে।

FacebookTwitterGoogle+Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*