জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীবাহী বাসের উপর বাঁদর ঝোলার মতো ঝুলে বাড়ির ফেরে কলেজ পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীরা

সাগর দেব, তেলিয়ামুড়া, ০৫ জুলাই || মহাবিদ্যালয়ে শিক্ষা গ্রহণ করতে এসে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীবাহী বাসের উপর বাঁদর ঝোলার মতো ঝুলে নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে ফিরছেন কলেজ পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীরা। এমনটাই দৃশ্য প্রত্যক্ষ করা গেল তেলিয়ামুড়া অম্পি সড়কের খাসিয়ামঙ্গলস্থিত তেলিয়ামুড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ের সম্মুখে। এই বিষয়ে বারবার ছাত্র-ছাত্রীরা কলেজের অধ্যক্ষকে জানিও কাজের কাজ অশ্ব ডিম্ব।জানা যায়, তেলিয়ামুড়া মহকুমার একটিমাত্র মহাবিদ্যালয় রয়েছে, সেটি তেলিয়ামুড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়। এই মহাবিদ্যালয়ে তেলিয়ামুড়া মহকুমার বিভিন্ন জায়গার ছাত্র-ছাত্রীসহ তেলিয়ামুড়ার আশপাশ এলাকা যেমন- তৈদু, অম্পি এলাকার ছাত্র-ছাত্রীরা পাঠ গ্রহণ করতে আসে। তেলিয়ামুড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়টি তেলিয়ামুড়া থেকে অনতি দূরে খাসিয়ামঙ্গল এলাকায় অবস্থিত। এই মহাবিদ্যালয়’টি জন্ম-লগ্ন থেকে বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত থাকলেও বর্তমানে মহাবিদ্যালয়টির পড়ুয়াদের কাছে চ্যালেঞ্জিং সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে যাতায়াত ব্যবস্থা। তেলিয়ামুড়া মহকুমার ছাত্র-ছাত্রীরা খাসিয়ামঙ্গলস্থিত তেলিয়ামুড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ে পৌঁছতে একমাত্র ভরসা অটো-রিক্সশা। আর তৈদু, অম্পি এলাকার কলেজ পড়ুয়াদের ভরসা যাত্রীবাহী বাস। কিন্তু কোনো কোনো সময় অটোরিক্সার সমস্যা দেখা দিলে তেলিয়ামুড়ার ছাত্র-ছাত্রীদের পায়ে হেঁটেই বাড়ি ফিরতে হয়। এও আবার এক কিলোমিটার আর দুই কিলোমিটার নয় দীর্ঘ প্রায় ৫-৬ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে বাড়ি ফিরতে হয় ছাত্রছাত্রীদের। এর অন্যতম কারণ হলো সরকারি মহাবিদ্যালয়’টি তেলিয়ামুড়া শহর থেকে খানিকটা দূরে অবস্থিত হওয়ার কারণে যাতায়াত ব্যাবস্থা অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তৈদু অম্পি সড়ক ধরে দিনে হাতেগোনা কয়েকটি বাস যাতায়াত করে আর ছাত্র-ছাত্রীদের সেই বাসই একমাত্র মূল ভরসা।
কিন্তু সোমবার তেলিয়ামুড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়ে ইন্টার্নাল পরীক্ষা থাকার কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের ভিড় ছিল অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেকাংশেই বেশি।
তৈদু- অম্পি এলাকার পড়ুয়াদের জন্য একমাত্র ভরসা বাস গাড়ি। আর তেলিয়ামুড়া থেকে যাত্রী নিয়ে খাসিয়ামঙ্গল হয়ে তৈদু-অম্পি যাওয়ার পথে যাত্রীবাহী বাসে বসার জন্য জায়গা না থাকার কারণে যাত্রীবাহী বাসের উপর নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁদর ঝোলার মতো ঝোলে বাড়ি ফিরতে হয়েছে তৈদু-অম্পি এলাকার পড়ুয়াদের সোমবার। এই সমস্যা আজকের নয় দীর্ঘদিন ধরেই এই ধরনের দৃশ্য পরিলক্ষিত হয়। কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা এই সমস্যার কথা বারবার কলেজের অধ্যক্ষ তথা ডক্টর মনোরঞ্জন দাস কে বারবার জানিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ছাত্র-ছাত্রীদের দীর্ঘদিনের দাবি কলেজের জন্য একটি বাস সার্ভিস প্রদানের। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হল দীর্ঘ বছর পেরিয়ে গেলেও সেই সমস্যা নিরসনের জন্য এগিয়ে আসেনি কলেজ কর্তৃপক্ষ।
এ ব্যাপারে বলতে গিয়ে তেলিয়ামুড়া এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব তথা প্রাক্তন শিক্ষক মনোরঞ্জন গোপ জানান, এই সমস্যাটা দীর্ঘ দিনের। ছাত্র-ছাত্রীদের এই সমস্যার থাকায় এটি একটি অমানবিক শিক্ষা বিস্তারের জন্য অপরিপন্থী হিসেবে কাজ করছে। অটো রিক্সা সার্ভিস নেই লাইন বাসের উপর নির্ভর করে তৈদু-অম্পি এলাকার ছাত্র-ছাত্রীরা জীবনে ঝুঁকি নিয়ে কলেজে পড়াশোনা করতে আসতে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন অটোর অভাবে ছাত্র-ছাত্রীরা পায়ে হেঁটে কলেজ থেকে বাড়ি ফিরবে তা মানা যায় না। কলেজের জন্য আরো বেশি পারমিট এবং অতিরিক্ত বাস সার্ভিসের জন্য তিনি আবেদন রাখেন। তিনি নিজে প্রত্যক্ষ করেছেন, বিশেষ করে কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরা পরীক্ষার চলাকালীন পায়ে হেঁটে কলেজে যাচ্ছে। কারণ ছাত্র-ছাত্রীদের তুলনায় প্রচুর সংখ্যা খুবই কম।
অন্যদিকে কলেজের অধ্যক্ষ ডক্টর মনোরঞ্জন দাস এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে কি ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেন এটা লক্ষনীয় বিষয়।

FacebookTwitterGoogle+Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*